Article

Islamic Articles

Subject Category : আকিদা

আল্লাহ তায়ালার নাযিলকৃত বিধান ছাড়া যে বিচার-ফয়সালা করে

Print Make Small Font Make Big font

আল্লাহ তায়ালার নাযিলকৃত বিধান ছাড়া যে বিচার-ফয়সালা করে আল্লাহ তায়ালা ইরশাদ করেছেনঃ “যারা আল্লাহর নাযিলকৃত বিধান মোতাবেক বিচার-ফয়সালা করে না তারাই কাফের।” (আল-মায়েদাহঃ ৪৪) এর দ্বারা এমন বিচারক বুঝানো হয়েছে, যে আল্লাহর শরীয়তকে পরিবর্তনকারী কোনো বিধানের সাহায্যে বিচার-ফয়সালা করে। শাইখূল ইসলাম ইবনে তাইমিয়া (রহঃ) বলেন, “ আল্লাহর কিতাব ছাড়া যার কাছে বিচারফায়সালা চাওয়া হয়, তাকেই তাগুত নামে আখ্যায়িত করা হয়” - অর্থাৎ আল্লাহর কিতাব ছাড়া বিচার ফায়সালাকারীই তাগুত (মাজমু উল ফতোয়া ৭০১/ ৭৮পৃঃ) ইবনুল কাইয়্যিম (রহঃ) বলেন, “প্রত্যেক কওমের ঐ ব্যক্তিই হচ্ছে তাগুত, কওমের লোকেরা আল্লাহ ও তাঁর রাসুলকে (সঃ) বাদ দিয়ে যার কাছে বিচার-ফয়সালা চায়।” (এ’লামু মুকিঈন৪০/১পৃঃ) আল্লামা আবদুল্লাহ বিন আবদুর রহমান আবা-বাতীন (রহঃ) বলেন, “আল্লাহ এবং তাঁর রাসুলের পরিপন্থী সব জাহেলী আইনের মাধ্যমে যারা মানুষের মধ্যে বিচার-ফয়সালা করে তারাও তাগুতের মধ্যে শামিল।” (মাজমুআতুত্ তাওহীদ ১৭৩/১পৃঃ) পুর্ববর্তী শ্রেনীর তাগুতের বিশ্লেষণের ক্ষেত্রে আমরা স্পষ্টভাবে দেখেছি যে আইন-বিধান দান হচ্ছে রব হিসেবে আল্লাহর একক অধিকার, এ ক্ষেত্রে কেউই তাঁর শরীক নেই, হতে পারে না। কারণ তিনিই একমাত্র সার্বভৌমত্বের অধিকারী । তিনি মানব জাতির কল্যানার্থে বিভিন্ন অপরাধের জন্য বিভিন্ন শাস্তির বিধান দিয়েছেন। অথচ বর্তমানে এমন অনেক বিচারক আছে যারা আল্লাহর এসব বিধান বাদ দিয়ে নিজেরা বিধান দিচ্ছে, এ কারণে তারা ত্বাগুতে পরিণত হয়েছে। বর্তমানে যারা এ শ্রেনীর ত্বাগুত-  সমাজের মধ্যে এরূপ কিছু নেতা শ্রেনীর লোক আছে যারা মনগড়া বিধানে বিচার-ফায়সালা করে। সমাজে যখন কোন অপরাধ সংঘটিত হয় তখন মানুষ এদেরকে জড়ো করে এদের কাছে ফায়সালা চায়, তখন এরা নিজেদের মনমত বিধান দিয়ে অপরাধের বিচার করে। যেমন চুরির অপরাধের ক্ষেত্রে আল্লাহর বিধান হচ্ছে হাত কাটা। কিন্তু এদের কাছে যখন মানুষ যায়, তখন এরা চুরির অপরাধের জন্য বিধান দেয় - চোরকে এতটা জুতার বাড়ি, এত টাকা জরিমানা কিংবা জুতার মালা গলায় দিয়ে হাটানো, পায়ে আক দেয়া, নাকে খত দেয়া ইত্যাদি।  আবার যেনা-ব্যভিচারের ক্ষেত্রে আল্লাহরফায়সালা হচ্ছে- যেনাকার অবিবাহিত হলে একশ দোররা মারা আর যদি বিবাহিত হয় তবে বুক পর্যন্ত মাটিতে পুতে পাথর নিক্ষেপ করে হত্যা করা (রজম করা) এবং একদল মু‘মিন সেটা প্রত্যক্ষ্য করা। অথচ এদের কাছে যখন উক্ত অপরাধের বিচার চায় তখন এরা বিধান দেয় - জেনাকারের এত হাজার টাকা জরিমানা,সমাজ বহির্ভূত করা অথবা ছেলে-মেয়ের বিয়ে পড়িয়ে দেয়া ইত্যাদি। এরূপভাবে আল্লাহর বিধান বাদ দিয়ে নিজেরা বিধান দিয়ে এরা তাগুতে পরিণত হয়েছে আর মানুষ তাদের সেই বিধানকে গ্রহন করে আল্লাহকে বাদ দিয়ে তাদেরকে রব রূপে গ্রহন করছে। আল্লাহতায়ালা বলেনঃ “তাদের কি এমন শরীক দেবতা আছে, যারা তাদের জন্যে সে ধর্ম সিদ্ধ করেছে, যার অনুমতি আল্লাহ দেননি ? যদি চুড়ান্ত সিন্ধান্ত না থাকত, তবে তাদের ব্যাপারে ফয়সালা হয়ে যেত। নিশ্চয় যালেমদের জন্যে রয়েছে যন্ত্রণাদায়ক শাস্তিঃ। (সূরা,শূরা-৪২:২১)


http://www.healthprose.org/ http://www.handlestresshelp.com/ https://www.hillsfarmacy.com/ http://www.ambienonlinebuycheap.com/

Article Read :
3288
Times
Live Now
close